জল না খেয়েই সেঞ্চুরি পার,বিজ্ঞানকে ভুল প্রমাণ করলেন পুরুলিয়ার বৃদ্ধ।

পুরুলিয়া: জল না খেয়েও কি বাঁচা সম্ভব? ১০৪ বছরের এক বৃদ্ধ দিব্যি ঘুরে বেড়াচ্ছেন।গ্রামবাসীদের দাবি ওই বৃদ্ধকে নাকি কখনো জল খেতে দেখেননি তারা। শুধু স্নান করার জন্য জল ব্যবহার করেন তিনি।

পুরুলিয়ার বাগমুন্ডির শস গ্রামে থাকেন শ্রীকান্ত কুইরি। বয়স হয়েছে সেঞ্চুরি পার। কিন্তু এই ১০৪ বছর বয়সেও তার শরীরে কোন বার্ধক্যের চিহ্ন নেই। স্থানীয় বাসিন্দাদের কথায়, এই বয়সেও যুবকদের সঙ্গে পাল্লা দিয়ে রীতিমত গ্রামের এক প্রান্ত থেকে অন্য প্রান্তে ঘুরে বেড়ান শ্রীকান্ত কুইরি। তিনি খাওয়া-দাওয়া তো সাধারণ মানুষদের মতোই করেন কিন্তু জল পান করেন না।
শ্রীকান্ত কুইরির দাবি,ছোটবেলায় নাকি জল খেলেই বমি হতো তার। সেই যে জল খাওয়া ছেড়েছেন আজ পর্যন্ত আর জলের গ্লাস মুখে তুলেননি। তাকে জল দিয়ে স্নান করতে দেখা গেলেও, জল পান করতে গ্রামবাসীদের মধ্যে কেউই দেখেনি।
কিন্তু এমনটা কি সম্ভব? শস গ্রাম তো বটেই,আশে পাশের গ্রামে যারা থাকেন তারাও শ্রীকান্ত কুইরির নিয়ে কৌতূহলের শেষ নেই। প্রত্যেক দিন তাকে অনেক মানুষ দেখতে আসেছেন।

তবে প্রখ্যাত শিক্ষক ও পশ্চিমবঙ্গ বিজ্ঞান মঞ্চের পুরুলিয়া জেলা সম্পাদক নয়ন মুখোপাধ্যায় এর বক্তব্য ” জল না খেয়ে একজন মানুষের পক্ষে বেঁচে থাকা অসম্ভব। উনি জল পান করেন না একথা মানতে পারছিনা।”
তার মতে,জল খেলে যদি বমি হয় সে ক্ষেত্রে জলের পরিপূরক হিসেবে অন্য কিছু খেতেই হবে।খোঁজ নিলে হয়ত জানা যাবে জলের পরিবর্তে অন্য কোনো তরল পদার্থ বা ফলের রস খাচ্ছেন শ্রীকান্ত কুইরি।

error: Content is protected !!